Leave a comment

আপীল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিবাহের ফলাফল ঃ

# মুসলিম আইন অনুসারে তালাকের পাশাপাশি বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করেও বৈবাহিক সম্পর্ক ছিন্ন করা যায় ।সাধারনত বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা স্ত্রীরাই করে থাকেন ।স্ত্রী যদি বিবাহ বিচ্ছেদের মামলায় ডিক্রি প্রাপ্ত হন এবং স্বামী যদি ডিক্রির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপীল করে ,এবং ঐ আপীলের কথা স্ত্রী জানা থাকা সত্ত্বেও যদি দ্বিতীয়বার বিবাহ করে তাহলে ঐ মামলার গুনাগুণ বিচার দ্বারা আপীল মীমাংসিত হবে , উহাতে স্ত্রীর দ্বিতীয় পক্ষের সন্তান যদি অবৈধ হয় তাহলেও গতান্তর নেই ।

আইনুদ্দিন কারিকর বনাম সালাতননেসা মামলায় এ ধরনের একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে ।১৯৪৪ সালে মামলাটি শুরু হয় এবং ১৯৫৩ সালে হাইকোর্ট কত্রিক উহার রায় প্রদত্ত হয় । এই মামলায় দেখা যায় স্ত্রী প্রতম আপীল কোর্টের রায়ের পরে বিবাহ করে এবং স্বামী ইতিমধ্যে হাইকোর্টে আপীল দায়ের করে ।উক্ত আপীল দায়েরের বিষয় স্ত্রী অবহিত ছিল ।এতদসত্তেওস্ত্রী বিবাহ করে ।পরবর্তীতে হাইকোর্ট স্ত্রীর পক্ষের রায় বাতিল করে দেয় ।

দ্বিতীয় বিবাহ করার পর দুটি সন্তান জন্ম গ্রহন করে এবং এদের মধ্যে একজন জীবিত থাকে ।স্বামীর আপিলের রায়ে পূর্বের রায় বাতিল হয়ে যাওয়ায় স্ত্রীর দ্বিতীয় বিবাহ অবৈধ হয়ে যায় এবং এর ফলে সন্তানের জন্মও অবৈধ হয়ে পড়ে ।

সতরাং দেখা যাচ্ছে যে , স্ত্রী যদি বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করে এবং সে মামলায় স্ত্রীর পক্ষে রায় হয় এবং স্বামী ঐ রায়ের বিরুদ্ধে আপীল করলে ,আপীল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্ত্রী দ্বিতীয় বিবাহ করতে পারেনা ।কেবলমাত্র আপীলের ফলাফল স্ত্রীর পক্ষে গেলেই সে দ্বিতীয় বিবাহ করতে পারে ।

Posted from
Shoaib Rahman
LL.M. Advocate

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: